আপনার কি অল্পতেই রাগ ওঠে? জেনে নিন কি করে বশে আনবেন ক্রোধ

Angry child

মানব শরীরের পঞ্চ রিপুর মধ্যে দ্বিতীয় রিপুটি হল “ক্রোধ”। শাস্ত্রমতে, এই ক্রোধ বা রাগ আসলে এক রকমের আগুন, যা ব্যক্তির মন পোড়ায়। অর্থাৎ, মানসিক ক্ষতি সাধন করে। তবে ক্রোধের আগুন যে শুধু মানসিক ক্ষতিই করে, তা কিন্তু নয়। অতিরিক্ত রাগ হলে আবার শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই অন্যের ভুলের জন্য অযথা রাগ করে নিজের বিপদ ডেকে আনবেন না। খুব বেশি রাগ হলে মেনে চলুন এই কয়েকটি টিপস, যা আপনার রাগ নিয়ন্ত্রণের মধ্যে আনবে।

রাগ নিয়ন্ত্রণ করার সবথেকে ভালো উপায় হলো “ক্যাথারোসিস”, অর্থাৎ বিতর্কে না গিয়ে কোনো এক নির্জন স্থান খুঁজে রাগের কারণ সম্বন্ধে ভাবুন। ভাবতে ভাবতে এক সময় রাগ কমে গিয়ে নিজের প্রতি মমতা হবে। মন হালকা হবে, তার সঙ্গে সঙ্গে মাথাও ঠান্ডা হবে। তবে, রাগের মাথায় চেঁচামেচি না করে মাথা ঠান্ডা রেখে মিষ্টি করেই যদি অপর পক্ষকে কড়া কথা শুনিয়ে দিতে পারেন, তাহলে সবথেকে বেশি মানসিক প্রশান্তি পাবেন।

রাগ নিয়ন্ত্রণে আনার সবথেকে ভাল উপায় হলো চকলেট অথবা ওই জাতীয় কোনো খাদ্য যা আপনার খুব প্রিয়। রাগ হলে বা মন খারাপ করলেই, নিজের পছন্দের খাবার খান। যা আপনার মুড মুহূর্তের মধ্যে বদলে দেবে। আবার নিজেকে খুব সুন্দর করে সাজালেও কিন্তু মন ভালো হয়ে যায়। আয়নায় যখন নিজের সুন্দর চেহারা ফুটে উঠবে তখন পারিপার্শ্বিক সমস্ত “স্ট্রেস”থেকে নিমেষের মধ্যেই মুক্তি পাবেন। নিজের চারপাশে সুগন্ধি ছড়িয়ে দিন। অ্যারোমা-থেরাপি কিন্তু মানসিক প্রশান্তি এনে দেয়।

আরো আছে, পারলে স্থান বদল করুন। যেখানে থাকলে রাগ হচ্ছে, সেখান থেকে দূরে চলে যান। তবে যদি সেটা একান্তই সম্ভব না হয়, তাহলে কানে হেডফোন লাগিয়ে গান শুনতে পারেন। গানের সুর এবং ছন্দে রাগ কর্পূরের মতো উড়ে যাবে। আবার হাতের কাছে কাগজ-পেন থাকলে ইচ্ছামত দাগ কাটতে থাকুন। মাথা যত ঠান্ডা হবে কাগজের উপর তত সুন্দর ছবি ফুটে উঠবে। মোবাইলে গেম খেলুন, অথবা বাড়ি কিংবা অফিসের কাজ নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ুন। মোটকথা নিজেকে ব্যস্ত রাখুন। তাহলেই রাগের বিরুদ্ধে জয়লাভ করবেন।