নতুন ভাবে দৃষ্টি আকর্ষণ করে ফের বাজারে ফিরে এলো BAJAJ Chetak, দাম দেখে নিন

এবার যেনো রাজার প্রত্যাবর্তন, এখানে রাজা বলার কারণ একটাই কারণ, এখানে কথা হচ্ছে BAJAJ Chetak এর। কারণ BAJAJ Chetak এমন একটা নাম যার সাথে আমাদের ছোটবেলার অনেক স্মৃতি জড়িয়ে আছে। এবার সেই চেতক আবার ফিরল দীর্ঘ বনবাসের পর, এক নতুন সাজে। এবার নতুন সাজে মানে এই কারণেই বলা, কারণ ভারতের প্রথম স্কুটি যা ইলেকট্রিক।

এখন যদি দেখা যায়, বা ভবিষ্যতের কথা ভাবা যায় তাহলে বোঝা যাবে এই বৈদ্যুতিক স্কুটি ছাড়া বা বৈদ্যুতিক যান ছাড়া এখন আর অন্য কিছুর ভবিষ্যত নেই। এই কথাটা আরও আমাদের অনেক আগেই বুঝতে হত। কিন্তু কি আর করা আমরা সেই জীবাশ্ম জ্বালানীর ওপরেই নির্ভরশীল ছিলাম এট দিন, কিন্তু হ্যা আমরাও আসতে আসতে সেই পথে অগ্রসর হচ্ছি ।

এই চেতক এমন একটা বাইক ছিল যা প্রত্যেক মধ্যবিত্ত বাড়িতে উপস্থিত ছিল, কিন্তু সময়ের সাথে তাল মিলিওয়ে চলতে না পেরে আবার কালের গর্ভে হাড়িয়ে গিয়েছিল। কিন্তু এখন আবার সে নিজের মহিমায় ফিরে এসেছে। এই স্কুটির মধ্যে অনেক নতুনত্ব আনা হয়েছে। এর মধ্যে আছে ৪০৪০ ওয়াটের মোট্র। যার দ্বারা অন্যাসে এই স্কুটি চলবে ৯৫ কিমি, তাও এক চার্জে।

এই স্কুটির ইঞ্জিনের যা পাওয়ার রয়েছে তার দ্বারা ৩ বছর বা ৫০,০০০ কিলোমিটার যাওয়ার জন্য সক্ষম। এই স্কুটির ব্যাটারি চার্জ হতে সময় লাগে ৫ ঘন্টা। এই স্কুটি কেনার সাথে সাথেই সংস্থা আরও অনেক সুবিধা যোগ করেছে এর সাথে। এখানে গ্রাহকেরা বিনামূল্যে ৩টি সার্ভিসিং ফ্রি দিচ্ছে তারা, সাথে আরও নতুন অনেক সুবিধা যোগ করেছে তারা। এবারকার এই নতুন চেতকে মানুষ অনেকটাই খুশি হবে বলে আশাবাদী সংস্থা।

কিন্তু এই চেতক ভারতের সাধারণ মানুষের হাতে কবে আসে তা স্পষ্ট জানায় নি সংস্থা। কিন্তু তারা একটা কথা জানিয়েছে প্রথমে এই স্কুটির আনন্দ নেবে পুনে ও ব্যাঙ্গালুরু। আর তার পরেই সারা দেশে ধীরে ধীরে ছড়িয়ে দেওয়া হবে। এর লঞ্চের সময় সংস্থার তরফ থেকে দাম ঘোষণা করে দেওয়া হয়েছে। এর দুটি ভেরিয়ান্ট লঞ্চ করা হয়েছে। একটি চেতক আরবান ও একটি চেতক প্রিমিয়াম। যার দামের মধ্যেও পার্থক্য আছে অনেকটা। একটা ১ লক্ষ ও একটা ১লক্ষ ১৫ হাজার।

সমস্তরকম এক্সক্লুসিভ খবর পেতে লাইক করুন