স্যোশাল মিডিয়া নিয়ে বড়সড় পদক্ষেপ কেন্দ্রের

যেভাবে মানুষের স্যোশাল মিডিয়ার ওপরে কেন্দ্র নজর রাখে, সেই নিয়মে অনেকটাই বদল আনার চেষ্টা এখন তারা। এই বিষয় নিয়ে ভাবা শুরু করেছে তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রক। এবার সংবাদ মাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, এখন কেন্দ্র শুধু মাত্র বড় যে সব স্যোশাল মিডিয়ার প্রতিষ্ঠানগুলো আছে, তাদের যেসব কনটেন্ট আছে, তার ওপরেই কড়া নজরদারি চালাবে।

এতে এখন অনেকের লাভ হল, অনেকে কিছুটা হলেও স্বস্তি পেলো। বিশেষ করে এখন এর হাত থেকে ছাড়া পেলো কিছু টেক সংস্থাগুলি। আসলে এখন স্যোশাল মিডিয়ায় যেভাবে বেআইনি কাজ কর্ম হচ্ছে, সাথে যেভাবে হিংসা ছড়ানো হচ্ছে এর জন্য কেন্দ্র ফেসবুক, টুইটার, হোয়াটস আপ, তাদের নিজেদের বলা হয়েছে তারা যেনো তাদের কাজে স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থা নেয়। তাছাড়া তারা টেক সংস্থাগুলোর সাথে সর্বক্ষণের আধিকারিক রাখার কথাও বলেছে।

এদিকে সুপ্রিমকোর্ট কেন্দ্রকে সময় দিয়েছে, যাতে স্যোশাল মিডিয়ার মাধ্যমে মানুষের ক্ষতি, তাদের তথ্য ফাঁস, হিংসা এইসবের ওপরে নিয়ম তৈরী করা যায়। পৃথিবী যত আধুনিক হচ্ছে প্রযুক্তি তত যেনো মানুষকে আকড়ে ধরছে। এর ফলে হিংসা বাড়ছে, দেশে বেআইনি কার্যকলাপ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এমন যাতে আর স্যোশাল মিডিয়ার দ্বারা না ঘটে তার জন্য সুপ্রিমকোর্ট কেন্দ্রকে এসব দমনের নিয়ম প্রকাশ করার নির্দেশ দিয়েছে।

এই নিয়ে সুপ্রিমকোর্টের দুই সদস্যের বেঞ্চ আদেশ দিয়েছে, সেখানে থাকা এক বিচারপতি বলেছে, প্রযুক্তি আমাদের গ্রাস করে ফেলেছে। আরও দিন যাবে আমাদের এই প্রযুক্তি গ্রাস করে ফেলবে। আমি খোজ নিয়ে দেখেছি আমি ইচ্চা করলে খুব সহজে ৩০ মিনিটের মধ্যে একটা একে -৪৭ কিনতে পারি, ডার্ক ওয়েব থেকে।

এখন এই সব শুনে ভয় হয়। তাই এই স্মার্ট ফোনের ওপরে আর আমার ভরসা নেই, এটা ছাড়তে চাই আমি। এখানে যে নিয়ম, করা হয়েছে, সেখানে বলা হয়েছে ফেসবুক, হোয়াটস আপ খুব জনপ্রিয়। তাই এর দ্বারা খুব সহজেই বেআইনি কাজ করা যায়, তাই বলা হয়েছে এই সব কাজ বন্ধ করার জন্য এই সব সংস্থাকে উপযুক্ত ব্যবস্থা নিতেই হবে।

সমস্তরকম এক্সক্লুসিভ খবর পেতে লাইক করুন