উল্টো পুরান! এবার স্ত্রী-কর্তৃক অত্যাচারিত হয়ে পুলিশের দ্বারস্থ স্বামী! বিস্তারিত

এবার স্ত্রী-কর্তৃক অত্যাচারিত হয়ে পুলিশের দ্বারস্থ স্বামী

নারী নির্যাতনের ঘটনা আমাদের চারপাশে হামেশাই ঘটে চলেছে। ধর্ষণ, খুন, বধু নির্যাতন ইত্যাদির ঘটনা আকছার ঘটছে আমাদের সমাজে। এরই মধ্যে একটি ব্যতিক্রমী ঘটনা ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের আলিগড়ে। সেখানে এক ব্যক্তি স্ত্রীর নির্যাতনের শিকার হয়ে পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন। খবরে প্রকাশ, ওই যুবক ট্র‍্যাভেল এজেন্ট হিসাবে কাজ করেন। স্যোশাল মিডিয়ায় পরিচয়ের সূত্র ধরে এক মহিলার সাথে তার বিয়ে হয় ২০১৯ সালের ৩রা জুন। উত্তরপ্রদেশের বরলা এলাকায় তাদের বিবাহ সম্পন্ন হয়। বিয়ের পর কিছুদিন সব ঠিকঠাক ছিল বলে জানান ওই যুবক। এর পর থেকে মামার অসুস্থতার কথা বলে স্বামীর কাছ থেকে ক্রমাগত টাকা নিতে থাকেন ওই মহিলা।

গত নভেম্বরে মামার চিকিৎসার জন্য অনেক টাকা দরকার এই অজুহাতে স্বামীর থেকে আড়াই লক্ষ টাকা ও গয়নাপত্র নিয়ে উধাও হয়ে যান ওই মহিলা। তার সাথে যোগাযোগে ব্যর্থ হয়ে খোঁজ খবর শুরু করেন ওই ব্যক্তি। তিনি জানতে পারেন যে তার স্ত্রী বাপের বাড়িতেই আছেন। এর পর তিনি তার স্ত্রীকে ফেরত আনতে গেলে তার সাথে যেতে অস্বীকার করেন ওই মহিলা। এর পর তাদের মধ্যে বচসা বাধে। তখন ওই মহিলা তার স্বামীকে মিথ্যা কেসে ফাঁসিয়ে দেওয়ার ভয় দেখান।

তার স্ত্রীর সম্পর্কে আরো খোঁজ নিয়ে ওই যুবকের চক্ষু চরকগাছ হয়ে যায়। তিনি জানতে পারেন, তিনিই তার স্ত্রীর প্রথম স্বামী নন। এর আগে ওই মহিলার বিয়ে হয়েছিল। বিয়ের অল্প দিন পরেই তার স্বামীর মৃত্যু হয়। তারপর দেওরকে বিয়ে করেন ওই মহিলা। কিন্তু কিছুদিন যেতে না যেতেই দ্বিতীয় স্বামীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের মিথ্যা অভিযোগ এনে তাকে জেলে পাঠান ওই মহিলা।
এর পর ট্র‍্যাভেল এজেন্ট যুবককে প্রেমের জালে ফাঁসিয়ে বিয়ে করেন এবং ক্রমাগত তার কাছ থেকে টাকা আদায় করতে থাকেন ওই মহিলা।

সমস্তরকম এক্সক্লুসিভ খবর পেতে লাইক করুন

নভেম্বরে স্বামীর থেকে বিশাল অঙ্কের টাকা হাতিয়ে বাপের বাড়ি চলে গিয়ে বহাল তবিয়তে বাস করছিলেন তিনি। স্ত্রী-কর্তৃক ধোঁকা খেয়ে এবং ফাঁসানোর হুমকি পেয়ে ওই অত্যাচারিত স্বামী পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন। আলিগড়ের এক থানায় গিয়ে এস.পি.র হাতে পায়ে ধরে ওই যুবক স্ত্রীর হাত থেকে তাকে বাঁচানোর আবেদন করেছেন। ওই মহিলা সম্পর্কে খোঁজ খবর শুরু করেছে পুলিশ। এদিকে এই ব্যতিক্রমী ঘটনা যেমন চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে তেমনি কিছু মহিলার আইনের অপব্যবহারের দৃষ্টান্তকেও সামনে এনেছে।