সেনাপ্রধানের দায়িত্ব নিয়েই পাকরাষ্ট্রকে হুঙ্কার নারাভানের, চাপে ইমরান

ছবিঃ সংগৃহীত

২৮ তম সেনা প্রধান নারাভানে তার পদে বসেই হুঙ্কার ছাড়ল পাকিস্তানের প্রতি। তিনি একটি সাক্ষাৎকারে বলেছেন, আমরা এখন যেকোনো পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত, আমাদের সব সেনা জম্মু কাশ্মীর সীমান্ত জুড়ে মোতায়েন করা হয়েছে, আমাদের যেসব পরিকল্পনা আছে তা বাস্তবায়িত করার জন্য অনুমতি দেওয়া হলে আমরা তা সফলতার সাথেই করতে পারব।

পাকিস্তান ২০১৮ সালে যতবার যুদ্ধ বিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করেছে, তা গত ১০ বছরে প্রথম। এবার ২০২০ সালের প্রথম দিনই তারা আবার যুদ্ধ বিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করেছে। তারা রাত ১১ টা ৩০ পর্যন্ত মর্টার হামলা চালায়, আর তারপরেই তা থামিয়ে দেয় পাকিস্তান কিন্তু ভারতও তার উপযুক্ত জবাব দেয় মর্টারের সাহায্যেই।

এই সবের ওপর নারাভানে বলেন, পাক অধিকৃত কাশ্মীরে এখন জঙ্গী ঘাটির সংখ্যা দিনের পর দিন বেড়ে যাচ্ছে এইসবের ওপর আমাদের নজর আছে। তিনি যেদিন এই সেনা প্রধানের দায়িত্ব নেয়, সেদিনই পাকিস্তানের ওপরে তোপ দেগে বলেন, যদি তারা সন্ত্রাস মদত বন্ধ না করে তাহলে তার উপযুক্ত জবাব দেওয়ার অধিকার ভারতের আছে।

সমস্তরকম এক্সক্লুসিভ খবর পেতে লাইক করুন

এর সাথে তিনি ছোয়া দেয় সার্জিক্যাল ও এয়ারস্ট্রাইকের কথাও। তার মানে তিনি বুঝিয়ে দিয়েছেন যদি পাকিস্তান ভারতের দিকে হামলা করে বা জঙ্গী মদত করে তাহলে ভারতও চুপ করে বসে থাকার পাত্র নয় । ভারতও তার উপযুক্ত জবাব দেবে।

পাকিস্তানের ক্ষোভ হল কেন্দ্রের ৩৭০ ধারা রদ, আর এখন এমনটাই মনে করছে বিশেষজজ্ঞরা । তার পর থেকেই এই যুদ্ধ বিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করা শুরু করেছে তারা, কিন্তু ভারতও তার উপযুক্ত জবাব দিয়েছে প্রত্যেকবার। এই ৩৭০ ধারা নিয়ে তিনি বলেন, এটা পুরোটাই ভারতের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার। আর এর থেকে এখন পাকিস্তান মুখ বাচাতে চাইছে, এখানে যা হয়ে গেছে তা আর ফেরানো যাবে না। এক বিষয় নিয়ে কতদিন চলা যায়? তাদের বোঝা উচিৎ এর অনেক দিন হয়ে গেছে।