ভূস্বর্গে প্রবল শৈত্যপ্রবাহ, এগিয়ে আনা হল কাশ্মীর-মোহবাগান ম্যাচের সময়

এগিয়ে আনা হল কাশ্মীর-মোহবাগান ম্যাচের সময়

কাশ্মীরে ইতিমধ্যেই পৌঁছে গেছে টিম মোহনবাগান। রবিবার রিয়াল কাশ্মীরের বিরুদ্ধে তাদের আই লিগের ম্যাচ। শ্রীনগর বিমানবন্দর থেকে সেনা কনভয়ের কড়া নিরাপত্তায় ঘিরে হোটেল লেমনট্রি-তে পৌঁছালো মোহনবাগান টিমমেটস। শোনওয়ার এলাকার এই হোটেলটিতে পৌঁছে বাকি দিন হোটেলবন্দি হয়েই কাটালো ফুটবলাররা।

কাশ্মীরের কনকনে শীতের সঙ্গে মানিয়ে নিতে তিন দিন আগেই ভূস্বর্গে পৌঁছেছে কিবু ভিকুনার দল। বৃহস্পতিবারেও সারাদিন শ্রীনগর জুড়ে মেঘলা আকাশ আর কনকনে ঠাণ্ডা অব্যাহত রইল। রবিবার ম্যাচের দিনেও আবহাওয়ার কোনো পরিবর্তন হবে না বলেই পূর্বাভাসে বলা হয়েছে। রাতের বেলা আরো ভয়ানক পরিস্থিতি। তাপমাত্রা সেই সময় নেমে যাচ্ছে হিমাঙ্কেরও নিচে। দিনের বেলা মেঘলা থাকলে তাপমাত্রা হয় বড়জোড় ১ থেকে ২ ডিগ্রি। অর্থাৎ শুধুমাত্র ডেভিড রবার্টসনের অধিনায়কত্বের রিয়াল কাশ্মীরের ফিজিক্যাল ফুটবলই নয়, রবিবারের ম্যাচে মোহনবাগানের বেইতিয়া, গনজালভেসদের গোল দিতে হবে হাড়কাঁপানো শীতের বিরুদ্ধেও।

ঠাণ্ডার সঙ্গে পাঙ্গা নিতে গ্লাভস, ফুলস্লিভ জার্সি সবই সঙ্গে করে নিয়ে গিয়েছে কলকাতার মনস্টাররা। রবিবারের আবহাওয়ার পূর্বাভাস দেখে ম্যাচের সময় এগিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ম্যাচের আয়োজকরা। চেন্নাই ম্যাচ দুপুর ১২টা-তে শুরু হলেও মোহনবাগান ম্যাচ শুরু হবে দিনে ১১.৩০ টায়। কাশ্মীর পৌঁছে বৃহস্পতিবার আর অনুশীলনের ঝুঁকি নেননি কোচ কিবু ভিকুনা। শ্রীনগরের অবস্থা এখনও স্বাভাবিক হয়নি। সড়কপথে টহলরত সেনা হামেশাই দেখা যাচ্ছে।

রাস্তাঘাটও থমথমে, লোকজন প্রায় নেই বললেই চলে। ভারতে আসার পর এমন পরিস্থিতিতে প্রথমবার পরে খানিকটা বিচলিত হয়েছিলেন বাগানের বিদেশি‌ খেলোয়াড়েরা। দলের স্থানীয়দের কাছে বারে বারে উদ্বেগও প্রকাশ করে ফেলেছিলেন বেইতিয়া, পাপা বাবাকররা। হোটেল থেকে কারোরই বাইরে বেরোনোর অনুমতি ছিল না। হোটেলেও ইন্টারনেট পরিসেবা অনেকটা সময়ই বন্ধ ছিল। এমন পরিস্থিতিতে পড়ে স্বাভাবিকভাবেই খানিকটা হতভম্ব কিবু ভিকুনার ছেলেরা।

আয়োজক রিয়েল কাশ্মীর কতৃপক্ষের দাবি রবিবার মোহনবাগানের ম্যাচ দেখতে কানায় কানায় ভরে যাবে গ্যালারি। চেন্নাইয়ের বিরুদ্ধে জয়ের পর স্থানীয়দের মধ্যে মোহনবাগান-রিয়াল কাশ্মীর ম্যাচ ঘিরে উ‍ৎসাহ-উদ্দীপনার পারদ চড়ছে। ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের পর ফুটবলকে সামনে রেখেই রোজের ছন্দে ফেরার চেষ্টায় কাশ্মীরবাসী। কোনো বিপত্তি এড়াতে ম্যাচের দিন বহুস্তর নিরাপত্তা বলয়ে ঘেরা থাকবে স্থানীয় টিআরসি স্টেডিয়াম এবং সমস্ত খেলোয়াড়েরা।​

সমস্তরকম এক্সক্লুসিভ খবর পেতে লাইক করুন