পশ্চিমবঙ্গ ও উত্তর প্রদেশে কি CAA নিয়ে নেতৃত্ব দিয়েছে PFI?

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে পশ্চিম বঙ্গে ও উত্তরপ্রদেশে নাকি বিক্ষোভে নেতৃত্ব দিয়েছে পিএফআই। এমনটাই জানিয়েছেন গোয়েন্দারা। তারা তাদের একটি রিপোর্টে পেশ করা হয়েছে। তাই এই নিয়ে এবার উত্তর প্রদেশের ডিজি জানিয়েছেন কেন্দ্রের কাছে এই সংগঠনের বিরুদ্ধে চিঠি দেওয়া হয়েছে। যাতে তাদের নিষিদ্ধ করা হয়। কারণ তারাই এই বিক্ষোভের স্রষ্টা। আর এর ফলেই দেশের বিভিন্ন জায়গায় হিংসা ছড়িয়েছে। কিন্তু এই সংগঠন এর দায় উড়িয়ে দিয়েছে।

এই সিএএ ও এন আর সি নিয়ে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে দাঙ্গা হাঙ্গামা শুরু হয়,সাথে হিংসা মূলক কার্যকলাপ। এরফলে উত্তর প্রদেশের পুলিশ ও গোয়েন্দা মারফত জানা গেছে এই সংগঠন ইচ্ছা করে হিংসা ছড়িয়েছে, সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করেছে সাথে বিভিন্ন জায়গায় দাঙ্গা হাঙ্গামা বাঁধিয়েছে। এর জন্য যাতে নিষিদ্ধ করা হয় তাদের উত্তর প্রদেশ থেকে, তাই কেন্দ্রের কাছে চিঠি পাঠিয়েছে যোগী সরকার।

এই নিয়ে উত্তর প্রদেশের ডিজিওপি বলেন, আমরা এই সংগঠনের ১৬ জনকে গ্রেফতার করেছি সাথে গোয়েন্দা সহযোগে এই তথ্য জোগাড় করেছি। এরপরে উপমুখ্যমন্ত্রী কেশব প্রসাদ মৌর্য বলেন, এই সব হিংসা মূলক কাজ করেছে এই সংগঠন । আর তারফলে তাদের নিষিদ্ধ করা উচিত। এভাবে তাদের আর স্বাধীনতা দেওয়া যায় না। এই সংগঠন একেবারে স্টুডেন্টস ইসলামিক মুভমেন্ট অফ ইন্ডিয়ার মতোই।

কিন্তু পিএফআই জানিয়েছে, এটা একটা মিথ্যা দোষারোপ। আসলে স্বাধীনতার পর এমনভাবে এত বড়ো বিক্ষোভ আন্দোলন কখনো হয় নি। তাই বিজেপি এখন অবাক। আসলে তাদের সব কথা মিথ্যা। বিজেপি শাসিত রাজ্যে শাসন, শোষণ, নিপীড়ন চলছে।

সমস্তরকম এক্সক্লুসিভ খবর পেতে লাইক করুন