প্রতিবছর বড়োদিন উপলক্ষে বাচ্চাদের আনন্দ দিতে সান্তাক্লজ সাজেন

জলপাইগুড়ি:–ভোলা মন্ডল অবসরপ্রাপ্ত ডাককর্মী। প্রতিবছর বড়োদিন উপলক্ষে বাচ্চাদের আনন্দ দিতে সান্তাক্লজ সাজেন। হাতে লাল ব‍্যাগের ঝুলি নিয়ে ঘুরছেন সকলের প্রিয় শান্তা দা। বড়দিন পড়ার আগেই সান্তা সেজে শহর থেকে গ্রাম বিভিন্ন পথে হেটে শিশুদের ডেঙ্গুর প্রকোপ থেকে রেহাই দিতে মশারি ও অন‍্যান‍্য জিনিস নিয়ে বেড়িয়ে পড়েছেন জলপাইগুড়ির সান্তা। চিঠিতে লেখা সান্তা আমার জন্য একটি মোটা চাদর আনবা ,আমি ও আমার ভাই চাদর গায়ে দিয়ে ঠান্ডা থেকে রক্ষা পাবো । সেই চিঠি পেয়ে সান্তা সেজে তাদের খোঁজে যাচ্ছেন জলপাইগুড়ির সুরিত মন্ডল । 1974 সাল থেকে সারা বছর নিজের জমানো টাকা দিয়ে গরীব দুঃস্থ বাচ্চাদের বিভিন্ন ভাবে সাহায্য করে আসছেন কোন ধরনের প্রচার ছাড়াই । প্রাক্তন ডাক বিভাগের কর্মী ভোলা মন্ডল যায় ভালো নাম সুরিত মন্ডল ।

অবশ্য এই নামের থেকে ভোলা দা বলেই জলশহরের সবাই চেনে । যিশুখ্রিষ্টের জন্মদিন দিনে 25 শে ডিসেম্বর আসলেই খেলনা নিয়ে আসা সান্তা । আর কয়েক দিন পরেই বড়োদিন। আর বড়দিন মানেই সকল বাচ্চাদের জন্যনিয়ে আসা খেলনা আনে তাদের সান্তা।এখন সেই সব বাচ্চাদের জন্য রকমারি খেলনা,জামা,চাদর ইত্যাদি আনার জন্য তৈরি হচ্ছেন ভোলা বাবু। তার আগে বাচ্চাদের চিঠি আসে সারা বছর ধরে। সেই সব বাচ্চাদের চিঠির ভিতরে তাদের কি অভাব বা কি দরকার তা দেখতে তাদের বাড়ি আগাম সান্তা সেজে যাচ্ছেন। কিনে আনছেন তাদের দরকারি সব জিনিস। এই বিষয়ে ভোলা মণ্ডল বলেন এই সব করে আমি আনন্দ পাই।