নাগরিকত্ব বিলে অমিত শাহের আট সওয়াল দেখুন একঝলকে

আজ সোমাবার লোকসভায় নাগরিকত্ব বিল পাশ হয়ে যায়, আর তা হয় ভোটা ভোটির মাধ্যমে। কারণ বিরোধীরা এই বিল নিয়ে বিরোধ করতে থাকায় এই সিদ্ধান্তে আসে বিজেপি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত এই নাগরিকত্ব বিল পাশ হয়ে যায়। এই নাগরিকত্ব বিল যখন অমিত শাহ পেশ করেন লোকসভায় তখন কিছু তিনি আক্রমণাত্মক সওয়াল করেন। সেগুলি হল-

এই বিল পাশ হলে, আমাদের প্রতিবেশী দেশ থেকে আশা সংখ্যা লঘুরা ভারতের নাগরিকত্ব পাবে।

এর পরে তিনি বলেন এই বিলের মাধ্যমে কোনও জাতি ধর্মের নিয়ম লঙ্ঘন হচ্ছে না, কারণ এটা ১৪ নম্বর ধারা লঙ্ঘন করছে না।

তিনি বলেন ভারতের সংখ্যা লঘুদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে মর্যাদা ও অনুদান দেওয়ার ব্যবস্থা করেছিল যা আজও চলছে, কিন্তু এর ফলে জাতি ধর্মের কোনও বিভেদ ঘটবে না।

এমন পরিস্থিতি আজ দাড়াতই না যদি কংগ্রেস ধর্মের ভিত্তিতে দেশ ভাগ না করত।

এই বিল কোনও সঙ্খ্যালঘুদের বিরুদ্ধে না, কারণ মুসলিমেরা প্রতিবেশী দেশ থেকে আসলেও তারা ভারতের নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করতে পারবে।আর তা সরকার ক্ষতিয়ে দেখবেও।

এই বিলে যা বলা আছে তা অন্যায় কিছুই না, আমাদের যেসব প্রতিবেশী দেশ আছে সেগুলো মুসলিম কান্ট্রি, তাই মুসলিমদের ওপরে অত্যাচার করা হয় না কিন্তু অন্যান্য সঙ্খালঘুদের ওপরে তা হয়।

৭১ সালে যে নাগরিকত্ব আইন ছিল যে যারা বাংলাদেশ থেকে আসবে তাদের ভারতের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে কিন্তু যারা পাকিস্তান থেকে আসবে তাদের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে না, কিন্তু কেনো ?

এই সব কথার মাধ্যমে তিনি বোঝাতে চান ভারতের ওপরে অধিকার আছে ভারতীয়দের। সব দেশের আলাদা আলাদা নিয়ম রয়েছে। এমনকি তাদের নিজস্ব নাগরিকত্ব দেওয়ার বিধি রয়েছে। ভারতের অনেক লোকেরাই বিদেশে যান, সেখানে গিয়ে বিভিন্ন কাজে সাহায্য করে, তারা নাগরিকত্ব পান না?