তৃণমূলের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে বিশেষ রিপোর্ট দিল পিকে, খুশির আমেজ মমতার

এবার তৃণমূলের দিন ফিরছে উত্তরবঙ্গে। এ কথা জানিয়ে দিল টিম পিকে।এটা নিয়েই একটা সময় প্রচুর চিন্তায় ছিলেন মমতা ব্যানার্জী। এবার সেই চিন্তা দূর করে দিল টিম পিকে। প্রশান্ত কিশোর দায়িত্ব নিয়েছে ৫ মাস হল, আর এই ৫ মাসে তার প্রথম রিপোর্ট। যা মমতা ব্যানার্জীর মুখে হাসি ফুটিয়েছে।

দিদিকে বলো কর্মসূচী নিয়েও কথা হয়েছে, এর দ্বারা মানুষ যে তার মনের কথা দিদির সাথে শেয়ার করতে পারছে সেই কথাও বলা হয়েছে এই রিপোর্টে। এই প্রকল্প যেসব জায়গায় এখনও চালু হয় নি, এবার সেখানে চালু করার ব্যবস্থা চলছে। এই উত্তরবঙ্গ তৃণমূলের হাত থেকে চলে যায় লোকসভার সময়।

এখন অনেক নিয়মে পরিবর্তন করা হয়েছে জনসংযোগ বাড়ানোর জন্য নতুন নতুন পন্থা অবলম্বন করা হয়েছে। উত্তরবঙ্গে মমতা ব্যানার্জী অনেকবার গিয়েছেন, কিন্তু তার থেকে লাভের লাভ কিছুই করতে পারে নি লোকসভায়, সেখানে বিজেপি এগিয়ে ছিল। কিন্তু উত্তরবঙ্গে হারার কারণ খুজে বের করার জন্য চলে অনেক ধরনের তদন্ত, আর সেখান থেকেই উঠে আসে আসল কারণ।

আর সেই কারণ জানার পরেই শুরু হয় দিদিকে বল কর্মসূচী, আর তার দ্বারা তৃণমূল যে উত্তরবঙ্গে ফিরছে, তা টিম পিকের রীপোর্টে স্পষ্ট। আলিপুরদুয়ার ও জলপাইগুড়িতে ১০ টি বিধানসভা কেন্দ্র, সেখানে নাকি ৬টি আসনে তৃণমূল এগিয়ে। এদিকে ফালাকাটাতে তাদের হারানো জমি পুনরুদ্ধার করার চেষ্টা করছে জোরকদমে, জানা গেছে তাতে সফল হয়েছে তারা অনেকটাই।

পিকের রিপোর্টে ধরা পরে উত্তরবঙ্গের ২০ টি বিধানসভার কেন্দ্র চা বাগান অধ্যুষিত। এর ফলে সেখান থেকে অনেক ভোট কমেছে তৃণমূলের, কারণ সেখান থেকে আদীবাসী ও জনজাতি তৃণমূলের থেকে দূরে সড়ে এসেছে। এর পরেই সেখানকার আলাদা আলাদা করে জনজাতির তালিকা চাওয়া হয়, এবার তার ওপরে নির্ভর করে আগামী কর্মসূচী করা হয়।