ইস্তফা দিলেন অনিল আম্বানী, কিন্তু কেন?

ইস্তফা দিলেন অনিল আম্বানী

ঋণের বোঝায় জর্জরিত রিলায়েন্স কমিউনিকেশন, আর তার ফলেই এবার তাদের ডিরেক্টর তার পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে দিল। সেই রিলায়েন্স কোম্পানির ডিরেক্ট পদে ছিল অনিল আম্বানি, তিনি কিন্তু শুধু একা নয়, তার সাথে আরও অনেকে ইস্তফা দিয়েছে তাদের নিজের নিজের পদ থেকে।

আজ শনিবার রিলায়েন্সের তরফ থেকে এই ঘোষণা করা হয়। এখন তাদের ক্ষতির পরিমাণ দাড়িয়েছে ৩০ কোটির ওপরে যা দ্বিতীয় কোয়ার্টারে, প্রথম কোয়ার্টারে ছিল যা প্রায় ৩৬৫ কোটির সমান।

এতো ক্ষতি সংস্থার। এবার তার পক্ষে আর সামলানো সহজ হয় নি। তাই এবার তিনি নতুন কারোর জন্য তার ডিরেক্টরের পদ ছেড়ে দিয়েছে। পরে জানা গেছে তার সাথে শ্রী মনিকান্তন ভি যিনি চিফ ফিনান্সিয়াল, সেও তার পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে দিয়েছে।

রিলায়েন্সের এই অবস্থার জন্য সংস্থাকে ন্যাশনাল কোম্পানি ল ট্রাইব্যুনাল এর তরফ থেকে দেউলিয়া ঘোষণা করা হয়।কারণ তাদের ওপরে ঋণের বোঝা ছিল ৫০,০০০ কোটি টাকার ওপরে। তাদের যখন দেউলিয়া ঘোষণা করা হয় তখন অনিল আম্বানির তরফ থেকে অনুরোধ করা হয় যাতে তাদের মামলার সময় ২০১৮ ,৩০ মে থেকে ২০১৯ এর ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত সয়কাল বাদ দেওয়া হয়।

পরে তাদের কথা মেনে এই কাজ করা হয়। অনিল আম্বানি দেউলিয়া হয়েছে কারণ জিওর দেখা দেখি তারাও কম খরচে গ্রাহকদের পরিওষেবা দিতে গিয়ে এই চরম লোক্সানের মুখে পড়েছে। পরে তারে নিজেদের ক্ষতি থেকে বাচাতে স্পেক্ট্রাম বেচার পরিকল্পনা করে কিন্তু শেষে সেখানেও কোনও কাজ করে উঠতে পারে নি তারা।

এদিকে এই সব কাজের জন্য অনিল জেল পর্যন্ত খাটট, কিন্তু তার দাদার জোরে বেঁচে গেছে। তবে এখনও তার মাথার থেকে বিপদের মেঘ কাটেনি। এখন এই সব থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য তিনি তার কোম্পানি বেঁচে দিতে এক পায়ে খাড়া।

যে সংস্থা এক সময়ে সব সরবরাহ করত এখন সেই কোম্পানি হয়েগেছে দেউলিয়া। যাদের অবস্থান ছিল ভারতে ৫ নম্বরে, এখন তাদের মোট আয় ১১ কোটি টাকা। তাই এবার সেই রিলায়েন্সকে পুনরায় আগের জায়গায় ফিরিয়ে আনা অনিলের সধ্যা নয় বলে অনেকে মনে করে।