তবে কি বিষ খাদ্য দিয়ে প্রভুর হাতে নৃশংস ভাবে খুন বিশ্বস্ত প্রবীণ হাতি?

বিষ খাদ্য দিয়েই প্রভুর হাতে নৃশংস ভাবে খুন বিশ্বস্ত প্রবীণ হাতি!
প্রতীক ছবি

পশুদের তুলনায় মানুষরাই মনে হয় বেশি স্বার্থপর। বারে বারে এমনটাই প্রমাণ মিলেছে। স্বার্থ ফুরোলেই যেন দরকার নেই তার।পুরোনো আর বয়স্ক জিনিস আর প্রয়োজন নেই। যে যুগে বয়স বাড়ার সাথে সাথে বাবা-মা যখন বৃদ্ধাশ্রমে। সে তুলনায় বন্য হাতির মূল্য অনেকে কম। তাই নিজের মাহূত প্রভুর কাছেই খুন হলেন প্রবীণ একটি হাতি। আজ বার্ধক্য যেন পাপ আর কঠোর শাস্তির মতই সমতুল্য।

যে এতদিন জুটাত তাদের পেটের খাবার ঠিক তার জন্যই বিষ মিশ্রিত খাবার। ঠিক এমনটাই ঘটল বিহারের তাইপুর গ্রাম নামক জায়গায়। প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, বয়স বাড়ার কারণেই বিষপ্রয়োগ নৃশংস ভাবে খুন ওই হাতিটি এবং রীতিমতো অভিযোগের আওতায় দুই মাহুত একজন মহম্মদ গয়াস এবং অন্যজন মহম্মদ শামসাদ।

বিহারের তাইপুর গ্রামের একটি পরিবারের সদস্যদের মতই ছিল এই বয়স্ক মৃত হাতি। সেই পরিবারেরই মহ, মাকসুদ অভিযোগ দায়ের করেছেন স্থানীয় প্রশাসনের কাছে। তদন্তকারী অফিসার শ্রী সিংহ বলেন, হাতির দাঁতের লোভ সামলাতে পারেনি মাহূত তাই মেরেছে নিজের বিশ্বাসযোগ্য হাতিটিকে, বার্ধক্যজনিত কারণ নয়।

তবু এখন সঠিক তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি। প্রকৃত কারণ জানতে ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে হাতির শরীরটি । পাশাপাশি, খবর দেওয়া হয়েছে বেগুসরাই বনবিভাগকেও। ময়নাতদন্ত করে ওই বনবিভাগেই দেহটিকে কবর বা পুতে রাখা হবে জানিয়েছে বেগুসরাই প্রশাসন ব্যবস্থা l সঠিক তথ্যের অপেক্ষায় স্থানীয় বাসিন্দারা।