শোভন-বৈশাখী নিয়ে নাটকীয় মোড়, জোর জল্পনা রাজনৈতিক মহলে

260

এবার এক নতুন জল্পনার স্বীকার হল রাজ্য রাজনৈতিক মঞ্চ, কিছুদিন আগেই শোভন বাবু কালীঘাটে গিয়ে মমতা ব্যানার্জীর হাতে ভাইফোঁটা খেয়ে এসেছে আর তার সাথে স্বাভাবিক ভাবে বৈশাখীও উপস্থিত ছিল। এই ঘটনার পর থেকে ফের এক নাটকীয় মোড় নেয় রাজ্য রাজনৈতিক মঞ্চ।

এই রকম আপডেট পেতে লাইক করুন

এরপর থেকে ফের আরেক নতুন জল্পনা শুনতে পাওয়া যায়, সেটা হল তাহলে কি বিজেপি ছেড়ে ফের তৃণমূলে যোগ দিচ্ছে শোভন –বৈশাখী? এই প্রশ্নের জবাব মিলতে না মিলতেই আরেক ঘটনার সুত্র পাত হল। বৈশাখীর মেয়ের জন্মদিনের নিমন্ত্রোন রক্ষার করল না তৃণমূল, আর তার সাথে বিজেপিও রাখল শুধু নামমাত্র।

বৈশাখী কালিঘাটে গিয়ে মমতা ব্যানার্জীকে নিমন্ত্রণ করে আসে, কিন্তু মমতা ব্যানার্জী আগেই জানিয়ে দেয় তিনি এই নিমন্ত্রণ রক্ষা করতে পারবে না, এর পরে পার্থবাবুকেও এই নিমন্ত্রণ করা হলে তিনিও এড়িয়ে যায়। কিন্তু বিঝেপি এই নিমন্ত্রণ রক্ষা করে ঠিকই তা অবশ্য নামমাত্র।

বিজেপির প্রথম সারির কোনও নেতাই উপস্থিত ছিল না সেই অনুষ্ঠানে। আর তৃণমূলের তো কেউ কথাই রাখে নি, এতে স্বাভাবিক ভাবেই শোভন বৈশাখীর মন দারুন ভেঙ্গে যায়, কারন তারা আশা করেছিল মমতা ব্যানার্জী যখন তাদের কাছে টেনে নিয়েছে, বোনফোটা, ভাইফোটা দিয়েছে।

তাহলে তাদের উপস্থিতি কাম্য, কিন্তু সেটা ছিল তাদের ভুল ধারনা। সেটা এবার ভেঙ্গে গেছে। এদিকে বিজেপিও যে তাদের ওপরে অনেকটাই নারাজ তা স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে। পরে বিজেপির প্রথম সারির নেতারা বিভিন্ন অজুহাত দিয়ে এই যাত্রায় বেচে গেছে।

সুত্রের খবর, তারা হয়ত উপস্থিত থাকতে পারে নি, বা ইচ্ছা করেই থাকে নি , কিন্তু উপহার ও শুভেচ্ছা বার্তা পাঠিয়েছে তার মেয়েকে। এখন যদি সব ঘটনা, কথা বার্তা খতিয়ে দেখা যায় তাহলে বোঝা যাবে শোভন ও বৈশাখীকে বিজেপি ও তৃণমূল দুই দলই টানছে। কিন্তু এখন তারা কোন দলকে বেশী গুরুত্ব দেবে তা সময়ই বলবে।

এই রকম আপডেট পেতে লাইক করুন