ম্যাট্রিমনিতে পাত্রীর পছন্দ হল না পাত্র, তারপরেই চরম পরিণতি সংস্থার, শীঘ্রই জেনে রাখুন

74

ম্যাট্রিমনি সংস্থাগুলি আশ্বাস দেন যে উপযুক্ত পাত্র অথবা পাত্রী কয়েকদিনের মধ্যেই খুঁজে দেবে তাঁরা। কিছু ক্ষেত্রে অনেকেই মনের মত জীবনসঙ্গী পান আবার অনেকেই নিরাশ সময়। নষ্ট হয় অর্থ এবং সময় দুটোই। কিন্তু এই ক্ষতিপূরণ কে দেবে?

এই সমস্যায় পড়েছিলেন চন্ডীগরের এক চিকিৎসক। তিনি আদালতে মামলা করেন এবং সেই মামলায় জিতেও যান তিনি। আদালতের তরফ থেকে জানানো হয় তাঁর কাছ থেকে নেওয়া সমস্ত টাকা তাকে ফেরত দিতে হবে এবং সঙ্গে দিতে হবে সুদ।

১০১৮ সালের ৬ ডিসেম্বর চণ্ডীগড়ের সুরেন্দ্র পাল সিং চাহাল এবং নিরেন্দ্র কৌর চাহাল আদালতে অভিযোগ দায়ের করেন। তাঁরা জানান, তাঁদের মেয়ের উপযুক্ত পত্রের জন্য ম্যাট্রিমনি সংস্থার দারস্ত হয়েছিলেন। তাঁরা সংস্থাকে বলে দিয়েছিলেন, তাঁদের মেয়ে মাঙ্গলিক এবং চিকিৎসক।

ম্যাট্রিমনি সংস্থার কাছে তাঁদের দাবি ছিল, পাত্র চণ্ডীগড় নিবাসী, জাঠ, চিকিৎসক এবং ওই ব্যক্তিকে মাঙ্গলিক হতে হবে। আগামী ৯ মাসের মধ্যে চাহিদা অনুযায়ী ১৮ জনের প্রোফাইল দেখানো হয়। চাহাল পরিবার রাজি হয়ে যায় এবং চুক্তির জন্য চাহাল পরিবারকে ৫০ হাজার টাকা দিতে হয়।

ক্রেতা সুরক্ষা আদালত থেকে ম্যাট্রিমনি সংস্থাকে নোটিশ পাঠানো হলে কোনো উত্তর দেয়নি তারা। গ্রাহকের চাহিদা অনুযায়ী ১৮ জনের প্রোফাইল পাঠানো হয়। কিন্তু সেখানে কাউকেই পছন্দ না হলে ওই ম্যাট্রিমনি সংস্থা আরও প্রোফাইল পাঠাবে বলে আশ্বাস দেয়। দাবি করে ওই সংস্থা। কিন্তু গ্রাহক রাজি হয়নি।

এই রকম আপডেট পেতে লাইক করুন