সাতদিন পরে মিলল জিয়াগঞ্জের সেই খুনীকে, কি হয়েছিলো সেদিন? পড়ুন আঁতকে উঠবেন

50
সাতদিন পরে মিলল জিয়াগঞ্জের সেই খুনীকে, পুরোটা পড়ুন আঁতকে উঠবেন

জিয়াগঞ্জের শিক্ষকের সপরিবারের মৃত্যুর ঠিক ৭ দিন পর খুজে পাওয়া গেলো সেই খুনীকে। তিনি পেশায় একজন রাজমিস্ত্রী। তাকে তার বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তার মোবাইল টাওয়ার ট্রেস করে পুলিশ তাকে পাকরাও করে, আর ধরার পর তিনি এই খুনের কথা স্বীকার করে।

তিনি কেনো খুন করেছিলেন স্বপরিবার কে তাও তিনি স্পষ্ট জানান, তিনি বলেন সেই শিক্ষকের সাথে পরিচয় হয় বিমা করতে গিয়ে , কারণ শিক্ষকতার সাথে সাথে তিনি নানা বিমা সংস্থার সাথে যুক্ত ছিলেন, তার শিক্ষকতার পরিচয় দিয়ে তিনি সবার কাছ থেকে বিমা করত।

কিন্তু তার ওপরে সবার অভিযোগ ছিল তিনি ঠিকঠাক টাকা জমা দিত না, কিন্তু তিনি শিক্ষক দেখে কেউ কিছু বলতো না। সেই মিস্ত্রীকেও সেই শিক্ষক একটি বিমার রসিদ দিয়ে আর পরের গুলো দেয় নি, এমন করে ২৪০০০ টাকা পেত তার কাছে সেই মিস্ত্রী ।

পরে টাকার তাগাদা করলেই বাজে ব্যবহার করত সেই শিক্ষক, এমন অনেক দিন চলতে থাকে। তারপর সেই মিস্ত্রীর বাবা সেই শিক্ষককে টাকার তাগাদা করলে তার সাথেও খারাপ ব্যবহার করে আর তারপরেই খুনের ছক খুজতে থাকে সেই মিস্ত্রী।

তার নামে আগে কোনও অপরাধের রেকর্ড নেই। তবে তিনি বলেছেন তার বাবার সাথে খারাপ ব্যবহার করার জন্যই এই কাজ করে বসেন তিনি। তারপর সুযোগ বুঝে তিনি তার বাড়ির ঠিকানা জেনে দশমীর দিন সকাল ১২ টা ৬ এ সেই শিক্ষকের বাড়িতে পৌছায়।

আর দরজা খুলে দিয়ে পেছনে ঘুরতেই ধারালো অস্ত্র দিয়ে হামলা করেন, তারপরে দেই শিক্ষকের স্ত্রী ও ছেলেকেও ধারালো অস্ত্র দিয়ে খুন করে, পরে সেই রক্ত মাখা জামা খুলে অন্য জামাকাপড় পরে চম্পট দেয়। তাকে বেড়িয়ে যেতে প্রতিবেশীরা দেখে, এমনকি তাদের বাড়িতে আসা দুধ বিক্রেতার সাথেও তার ধাক্কা লাগে। জানা যায় ১২ টা ৬ মিনিট থেকে ১২ টা ১১ মিনিটের মধ্যে ৩ টি খুন করে পালায় সে।

এই রকম আপডেট পেতে লাইক করুন