অনুব্রতকে হুমকি, কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা পেলেন বিজেপি নেতা, চাঞ্চল্য রাজনৈতিক মহলে

তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব কমবেশি সর্বত্র চোখে পড়ে।বিশেষ করে ভোটের আগে একদল থেকে আরেক দলে প্রবেশ করাটাও অনেকটাই গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের উদাহরণ বলেই মনে করে অনেকে। বীরভূমের জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল কে খুনের হুমকি দিয়েছিল তার দলের একজন কর্মী নিত্যানন্দ চট্টোপাধ্যায়। তারপরেই তাকে পাঠানো হয়েছিল শ্রীঘরে কিন্তু জামিনে ছাড়া পেয়ে এখন তিনি মুক্ত, আর তারপরেই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন তিনি, আর যার ফলে এই কিন্তু নিরাপত্তা দেওয়া হয়েছে তাকে।

এখন বিজেপিতে যোগ দেওয়া মানেই আধাসামরিক বাহিনী নিয়ে ঘুরে বেড়ানো।এই বিষয়টি নিয়ে অনেক আগেই বিজেপির অন্দরমহলে বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছিল। বিজেপির অনেক নেতাই কটাক্ষ করে বলেছিলেন যাদের হয়তো পাড়ার কাউন্সিলর হওয়ার যোগ্য নেই তারা আজকাল কেন্দ্রীয় বাহিনী নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এই বিষয় নিয়ে তেমনি বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে সর্বত্র।

গতকাল শুক্রবার নতুন বিজেপি নেতার বাড়িতে পাঁচজন আধা সামরিক বাহিনীকে পাঠানো হয়। কিন্তু তুমি কি আদৌ নিরাপত্তার জন্য আবেদন করা হয়েছিল কিনা সেই বিষয় নিয়ে তিনি কিছু না জানালেও। তিনি জানান বিজেপি সরকারের প্রতিটি নিদারুণভাবে কৃতজ্ঞ। এখন দলের তরফ থেকে তাঁকে যেখানেই যেতে বলা হবে তিনি সেই আদেশ পালন করবেন। এখানেই শেষ নয় তিনি তার পুরোনো দল তৃণমূলকে নিয়েও কিছু কথা বলেছেন।

তিনি বলেন তৃণমূলের জন্ম লগ্ন থেকেই দলের সাথে যুক্ত ছিলাম,গুসকরায় সংগঠনকে মজবুত করে তুলেছি। কিন্তু তার প্রতিদান আমি পেয়ে গেছি। এমনকি ১৩ দিনের জেল পর্যন্ত খেটেছি। তৃণমূলের এক নেতা আমার কাছ থেকে কুড়ি লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করেছে। অনেক ধরনের প্রতিদান পেয়েছি তাই এখন মূল উদ্দেশ্য তৃণমূলকে উৎখাত করা।