অমিত শাহকে খাইয়েছিলেন মধ্যাহ্নভোজ, এবার মমতার মিছিলে বাসুদেব বাউল

দিন কতক পূর্বেই তার বাড়িতে বসে খেয়ে গিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে তিনি গান শুনিয়েছিলেন, “তোমায় হৃদ মাঝারে রাখবো, যেতে দেবো না!”, বিখ্যাত সেই বাউল গান। তবে রাজনৈতিক রঙ্গমঞ্চে কত কিছুই না হয়। মাত্র নয় দিন পূর্বে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে সাদরে অভ্যর্থনা জানিয়ে ছিলেন যিনি, আজ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে বীরভূমে আয়োজিত তৃণমূলের বিশেষ মিছিলেও তাকে দেখা গেল।

উল্লেখ্য, গত ২০শে ডিসেম্বর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে সাদরে গৃহে অভ্যর্থনা জানিয়ে মধ্যাহ্নভোজন করিয়েছিলেন বাসুদেব দাস বাউল। এরপর তার জীবনে অবশ্য রাজনৈতিক রং লাগবে বেশি দেরী হয়নি। কারণ ঠিক ৪৮ ঘণ্টার মাথাতেই বীরভূমের তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের বাড়িতে দেখা গিয়েছিল তাকে। তিনি সেখানে জানিয়েছিলেন, অমিত শাহকে তিনি তার সুবিধা অসুবিধার কথা জানাতে পারেননি। কেন্দ্রীয় সরকারের কানে তাদের অভাব-অভিযোগের কথা পৌঁছয়নি।

এই কারণ দর্শিয়ে তৃণমূলের জেলা সভাপতির দ্বারস্থ হয়েছিলেন বাসুদেব দাস বাউল। তিনি জানিয়েছেন, তিনি তার সুবিধা-অসুবিধা, অভাব-অভিযোগের কথা স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রীর কাছে পৌঁছে দিতে চান। এই উদ্দেশ্যেই তৃণমূলের দ্বারস্থ হয়েছেন তিনি। সেদিনের বৈঠকেই তিনি জানিয়ে দিয়েছিলেন, ২৯শেডিসেম্বর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে বীরভূমে তৃণমূলের মিছিলে অংশগ্রহণ করবেন তিনি।

সেইমতো মিছিলের একেবারে প্রথম সারিতেই উপস্থিত ছিলেন বাসুদেব দাস বাউল। মিছিলেও একই গান ধরলেন তিনি। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মতো মুখ্যমন্ত্রীকেও শোনালেন “তোমায় হৃদ মাঝারে রাখবো….”। এতে অবশ্য বিজেপির অন্দর মহলে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। বঙ্গ বিজেপি-র দাবি, তৃণমূল বাউল শিল্পীকে ভয় দেখিয়ে তাদের মিছিলের অন্তর্ভুক্ত করেছে।