টার্গেট একুশ, দিল্লিতে দিলীপ-মুকুলের সঙ্গে বৈঠক শাহর, রয়েছেন রাহুল সিনহাও

আসন্ন একুশের বিধানসভা নির্বাচনে বাংলা দখলের লড়াইয়ে তৃণমূলকে কোনোভাবেই ছাড় দিতে রাজি নয় কেন্দ্রীয় শাসক দল। আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে বাংলায় জয় লাভের উদ্দেশ্যে কি কি পদক্ষেপ নেওয়া যেতে পারে, সে সম্পর্কে দফায় দফায় আলোচনা চলছে দিল্লিতে। সম্প্রতি, পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির সাংগঠনিক স্তরের রদবদল হয়েছে। বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তথা বিজেপির প্রাক্তন সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহের নেতৃত্বে দিল্লিতে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকের আয়োজন করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবারের বৈঠকে অমিত শাহ ছাড়াও উপস্থিত থাকবেন অরবিন্দ মেনন, শিবপ্রকাশ, কৈলাস বিজয়বর্গীয় এবং বিজেপির বর্তমান সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা। এছাড়াও বাংলা থেকে ডেকে পাঠানো হয়েছে রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ, সর্বভারতীয় সহ সভাপতি মুকুল রায় এবং বিজেপির প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট রাহুল সিনহাকে। বাংলায় আসন্ন একুশের নির্বাচনের স্ট্র্যাটেজি আলোচনা করতেই এ দিনের বৈঠকের আয়োজন করেছেন কেন্দ্রীয় নেতৃত্বরা।

রাজ্য বিজেপির এক নেতার তরফ থেকে জানা গেল, এদিনের বৈঠকে বাংলায় ভোটের রণনীতি নিয়ে আলোচনার পাশাপাশি বিজেপি দলের সাংগঠনিক স্তরে প্রাক্তন তৃণমূল নেতাদের অন্তর্ভুক্তি নিয়ে দলের মধ্যে যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে, আলোচনার মাধ্যমে তার সমাধান করা হবে। তিনি আরো জানিয়েছেন, এ দিনের বৈঠকে অবশ্য বিধানসভা ভোটের জন্য এলাকাভিত্তিক নীতি নির্ধারণ সংক্রান্ত কোনো আলোচনা করার পরিকল্পনা নেই।

বিজেপির অন্দরমহল সূত্রে খবর, আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের মাধ্যমে বাংলায় বিজেপির জয় পতাকা উড়াতে মুকুল রায়কেই রাজ্যের নির্বাচনে পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব দেওয়া হতে পারে। কারণ, তৎকালীন রাজ্য নির্বাচন কমিটির আহ্বায়ক মুকুল রায়ের নেতৃত্বে ২০১৮ সালের পঞ্চায়েত ভোট এবং ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে বাংলায় ব্যাপক সাফল্য লাভ করেছিল বিজেপি। উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে বাংলার ৪২টি আসনের মধ্যে ১৮টি দখল করে নিয়েছিল কেন্দ্রীয় শাসক দল।