কৃষি আইন বা’তি’ল হচ্ছে না, তবে অন্যান্য বি’ষ’য়ে কৃষকদের সা’থে ক’থা ব’ল’তে রা’জি কেন্দ্র: কৃষিমন্ত্রী

গত বছর পাশ হওয়া নতুন কেন্দ্রীয় কৃষি আইন নিয়ে ভারতীয় কৃষক মহলে ক্ষোভ এখনো নিরসন হয়নি। ভারতীয় কৃষকরা এখনো তাদের দাবিতে অনড়। নতুন বিতর্কিত কৃষি আইন বাতিল করার দাবিতে আজও দিল্লি সীমান্তে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। তবে কেন্দ্রীয় সরকারও নিজেদের দাবী থেকে সরবে না। কেন্দ্রের তরফ থেকে সম্প্রতি সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, নতুন প্রবর্তিত কৃষি আইন প্রত্যাহার করা হবে না। আইন প্রত্যাহারের বদলে অন্য কোনো কথা থাকলে কেন্দ্রীয় সরকার কৃষকদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে রাজি।

কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমর মঙ্গলবার সংসদে একথা সাফ জানিয়ে দিলেন। তিনি জানাচ্ছেন কেন্দ্রীয় সরকার কৃষি আইন নিয়ে কৃষকদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে রাজি। কৃষকদের দাবি-দাওয়া নিয়েও আলোচনা হতে পারে। নতুন কৃষি আইনের বিভিন্ন দিক সম্পর্কে আলোচনা হবে। তবে আইন বাতিল হওয়ার কোনো সম্ভাবনা থাকছে না। অবশ্য তিনি জানিয়েছেন, কৃষিজাত পণ্যের সহায়ক মূল্যের বিষয়টিও বজায় থাকবে।

যুক্তরাষ্ট্রীয় ও রাজ্যের বিভিন্ন খাদ্য এজেন্সি বিভিন্ন স্কিমে কৃষিপণ্য সংগ্রহ করে। ভারত সরকার ২২টি প্রধান কৃষিপণ্যের সহায়ক মূল্য ঘোষণা করেছে বলেও বিরোধীদের জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী। পঞ্জাব, হরিয়ানা ও উত্তর প্রদেশের কৃষক সংগঠনগুলি কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে সরব হয়েছে। কৃষকদের আশঙ্কা কেন্দ্রের প্রণীত এই নতুন কৃষি আইন এর ফলে এবার থেকে বড় বড় শিল্পপতিদের কাছে আত্মসমর্পণ করতে হবে কৃষকদের।

একইসঙ্গে স্বাভাবিক জীবনযাত্রার উপরেও ব্যাপক প্রভাব পড়তে চলেছে বলে আশঙ্কা করছেন বিরোধীরা। সমালোচনার মুখে পড়েও অবশ্য কেন্দ্র তার অবস্থানে অনড়। কৃষিমন্ত্রী সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, নতুন কৃষি আইন নিয়ে বহু কৃষকদের সঙ্গে আলোচনা করা হয়েছে। ভবিষ্যতে অন্যান্য বিষয় নিয়ে আলোচনা করা যাবে। তবে কৃষি আইন প্রত্যাহার করে নেওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই।