বিয়ের আগেই সব টাকা খরচ করে ফেলেছেন আদিত্য, বাইক বিক্রি করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন গায়ক

করোনা মহামারীর জেরে প্রায় সাত মাস আগে যে লকডাউন শুরু হয়েছিল তার রেশ এখনো কাটেনি। দেশের বহু মানুষ এই সময়কালের মধ্যে রোজগার হারিয়েছেন, অনেকের আয় কমে এসেছে। অর্থনীতিবিদদের আশঙ্কা অনুসারে, এই লকডাউনের প্রভাবে অনেকেই নিম্ন মধ্যবিত্তের শ্রেণীতে নেমে আসবেন। সেই আশঙ্কাই সত্যি প্রমাণিত হলো বলিউডে।

বলিউডের বিখ্যাত শিল্পী উদিত নারায়নের পুত্র তথা জনপ্রিয় গায়ক আদিত্য পাঞ্চোলির অর্থনৈতিক অবস্থাও এখন খুব একটা সুবিধার নয়। সম্প্রতি সংবাদমাধ্যমের কাছে একটি সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে আদিত্য জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে তার ব্যাংক একাউন্টে মাত্র ১৮ হাজার টাকা পড়ে আছে। সরকার যদি লকডাউন না তোলে, তিনি চলতি মাসের মধ্যে যদি কোনো কাজ না পান, তাহলে কর্পোদক শূন্য হয়ে পড়তে পারেন তিনি।

সংবাদমাধ্যমের কাছে এমনই আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তিনি। তিনি এও বলেছেন, পরিচিতি আরো খারাপের দিকে গেলে তাকে হয়তো তার বাইক অথবা অন্যান্য সম্পত্তি বিক্রি করতে হতে পারে। আদিত্য জানালেন, মিউচুয়াল ফান্ডগুলিতে তার যা কিছু সেভিংস ছিল, সাত মাসের মধ্যেই তা প্রায় শেষের দিকে। এরমধ্যে আবার চলতি বছরেই নিজের বহুদিনের প্রেমিকা শ্বেতা আগারওয়ালের সঙ্গে বিবাহসূত্রে আবদ্ধ হওয়ার পরিকল্পনা করেছিলেন তিনি।

আদিত্য জানাচ্ছেন, তিনি কোনোদিন স্বপ্নেও ভাবতে পারেননি প্রায় এক বছরের কাছাকাছি সময়কাল তিনি বেকার হয়ে বাড়িতে বসে থাকবেন। লকডাউন প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে তিনি বলেছেন, সরকার যদি এখনও লকডাউন না তোলেন তাহলে দেশের বহু মানুষ না খেতে পেয়ে এমনিতেই মরে যাবেন। উল্লেখ্য, গান গাওয়ার উপর বেশি গুরুত্ব দিতে লকডাউনের আগে টেলি জগত থেকে ছয়মাসের ছুটি নিয়েছিলেন আদিত্য। কয়েক মাস আগেই অবশ্য ইন্ডিয়ান আইডল হোস্ট করতে দেখা গিয়েছে তাকে।