অবিলম্বে দেশজুড়ে ল’ক’ডা’উ’ন ঘো’ষ’ণা উচিত, মোদি সরকারকে ক’ঠো’র চা’প টাস্ক ফোর্সের

দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বিগ্ন প্রশাসন। তবুও এখনই লকডাউনের পথে হাঁটতে রাজি নন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তবে টাস্ক ফোর্স কিন্তু প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে বারংবার অবিলম্বে লকডাউন ঘোষণা করার জন্য চাপ দিচ্ছে। বিশিষ্ট সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উপর “কঠোর ভাবে চাপ দিচ্ছে” টাস্কফোর্স যাতে তিনি অবিলম্বে দুই সপ্তাহের জন্য লকডাউন ঘোষণা করেন।

দেশে দৈনিক সংক্রমণ ৪ লক্ষের গণ্ডি পেরিয়ে গিয়েছে। উত্তর প্রদেশ, দিল্লি, মহারাষ্ট্র, কেরালা, কর্ণাটক, তামিলনাড়ু, পশ্চিমবঙ্গ, ছত্রিশগড়ের করোনা পরিস্থিতি কিন্তু শোচনীয়। সংক্রমনের মাত্রা এবং মৃত্যুর হার উভয়ই পাল্লা দিয়ে বাড়ছে। এহেন পরিস্থিতিতে লকডাউন একমাত্র বিকল্প উপায় বলে মনে করছে টাস্কফোর্স। তাই দেশে অবিলম্বে দুই সপ্তাহের জন্য লকডাউন চালু করার নিদান দিচ্ছে তারা।

২০শে এপ্রিল জাতির উদ্দেশে ভাষণের সময় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, দেশের পরিস্থিতির নিরিখে লকডাউন এড়ানোর চেষ্টা করবে কেন্দ্র। তবে টাস্কফোর্সের দাবি, দেশের ইতিমধ্যেই অক্সিজেনের ঘাটতি দেখা দিয়েছে। হাসপাতালের বেডের আকাল, স্বাস্থ্য পরিকাঠামো দুর্বল হয়ে পড়েছে। এখনই লকডাউন চালু না করলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে।

করোনা সংক্রমনের চেইন ভাঙ্গার উদ্দেশ্যে অন্তত দুই সপ্তাহের জন্য লকডাউন চালু হওয়া প্রয়োজন বলে দাবি করছেন টাস্কফোর্সের এক সদস্য। তাহলে বর্তমানের দুর্বল স্বাস্থ্য পরিকাঠামোও কিছুটা হলে উন্নতি হবে।