আয়ুষ্মান ভারত ও কিষাণ সম্মান নিধি চালুর জন্য কেন্দ্রকে চিঠি মমতার

বিরোধীদের লাগাতার সমালোচনা এবং সুপ্রিম কোর্টের নোটিশ পেয়ে অবশেষে হার মানলো রাজ্য। দেশের অন্যান্য রাজ্যের মতো এবার পশ্চিমবঙ্গবাসীও “প্রধানমন্ত্রী কিষান সম্মান নিধি যোজনা”এবং “আয়ুষ্মান ভারত যোজনা”র সুযোগ-সুবিধা পেতে চলেছেন। কেন্দ্রের সঙ্গে অন্তর্দ্বন্দ্ব ভুলে সম্প্রতি কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমারের কাছে চিঠি পাঠিয়েছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মঙ্গলবার একটি টুইট বার্তায় মাধ্যমে রাজ্যের প্রশাসনিক দপ্তরের তরফ থেকে জানানো হলো, গত ৯ই সেপ্টেম্বর কেন্দ্রীয় কৃষি মন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমার এবং কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধনকে এ বিষয়ে দুটি চিঠি পাঠিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। চিঠির মাধ্যমে মুখ্যমন্ত্রী কেন্দ্রের কাছে “প্রধানমন্ত্রী কিষান সম্মান নিধি যোজনা”র বিকল্প হিসেবে রাজ্যের “কৃষক বন্ধু” প্রকল্পের উল্লেখ করেন। পাশাপাশি, কেন্দ্রের “আয়ুষ্মান ভারত” প্রকল্পের বিকল্প রাজের “স্বাস্থ্য সাথী” প্রকল্পের উল্লেখ করেন।

উল্লেখ্য, করোনা মহামারীর আবহের মধ্যেও কেন রাজ্যে কেন্দ্রের “আয়ুষ্মান ভারত” প্রকল্প চালু করা হয়নি সে প্রসঙ্গে জানতে চেয়ে পশ্চিমবঙ্গসহ দেশের ছয়টি রাজ্যকে নোটিশ পাঠায় সুপ্রিম কোর্ট। উল্লেখ্য এই ছয়টি রাজ্যেই কেন্দ্র বিরোধী সরকার রয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী তার চিঠিতে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য প্রকল্পের টাকা হাতে পেলেই তিনি পশ্চিমবঙ্গে “আয়ুষ্মান ভারত যোজনা” চালু করবেন।

পাশাপাশি, পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় সম্প্রতি একটি টুইট বার্তায় রাজ্যে “প্রধানমন্ত্রী কিষান সম্মান নিধি যোজনা” চালু না করা প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীকে আক্রমণ করেন। তার দাবি অনুযায়ী, কেন্দ্র সরকারের সাথে মুখ্যমন্ত্রীর লড়াইয়ের ফলশ্রুতি হিসেবে পশ্চিমবঙ্গের প্রায় ৭০ লক্ষ কৃষক কেন্দ্রীয় সরকারের কাছ থেকে ৮৪০০ কোটি টাকা সুবিধা পাওয়া থেকে বঞ্চিত হলেন। কেন্দ্রের গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কৃষকরা তাদের একাউন্টে ১২ হাজার টাকা পেতেন। মুখ্যমন্ত্রীর জন্য সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন কৃষকেরা।